যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে মুসলিমদের ওপর নিষেধাজ্ঞা ঠেকাতে মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে বিল পাস

সম্প্রতি মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে মুসলিমদের পক্ষে একটি বিল পাস হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে মুসলিমদের ওপর নিষেধাজ্ঞা ঠেকাতে এই বিল বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

এই বিলের কারণে ধর্মের ওপর ভিত্তি কোনো নির্দিষ্ট কোনো সম্প্রদায়ের ওপর যে কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্টের নিষেধাজ্ঞা আরোপের ক্ষমতাকে খর্ব করা হবে। ফলে কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট চাইলেই আর আগের মতো যে কোনো দেশের ওপর ইচ্ছামত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারবেন না।

নাগরিক অধিকার বিষয়ক আইনজীবীরা এই বিলকে স্বাগত জানিয়ে বলছেন, সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে এটি একটি বড় পদক্ষেপ।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বেশ কিছু মুসলিম দেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন। মূলত ওই নিষেধাজ্ঞা প্রতিহত করতেই ‘নো ব্যান’ নামের এই বিলটি পাস করা হয়েছে।

এই বিলটি আইনে পরিণত করতে মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চ কক্ষ সিনেটেও পাস করতে হবে। বুধবার প্রতিনিধি পরিষদে এই বিলের পক্ষে ভোট দিয়েছে ২১৮ জন এবং বিপক্ষে ভোট পড়েছে ২০৮টি।

মার্কিন নাগরিক অধিকার গ্রুপের মুসলিম আইনজীবী মাদিহা আহুসেইন বলেন, মুসলিম নিষেধাজ্ঞার কারণে পরিবারগুলো বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা বছরের পর বছর জীবনকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। তিনি বলেন, মুসলিম, আফ্রিকান এবং অন্যান্যদের বহিরাগত হুমকি হিসেবে তুলে ধরেছে এই নিষেধাজ্ঞা।

প্রতিনিধি পরিষদে ওই বিল পাসের পর মাদিহা এক বিবৃতিতে বলেন, আমাদের অবশ্যই এটা নিশ্চিত করতে হবে যে কোনো প্রেসিডেন্ট যেন আর কখনও এ ধরনের বৈষম্যমূলক নিষেধাজ্ঞা প্রয়োগ করতে না পারে। প্রতিনিধি পরিষদে ‘নো ব্যান’ আইন পাস হওয়ার মাধ্যমে আমরা এটা নিশ্চিত করছি যে তারা আর এ ধরনের কাজ করতে পারবেন না।

চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এক গুচ্ছ নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন জো বাইডেন। এসব আদেশের মধ্যে প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ফেরা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় আবারও যুক্ত হওয়া, মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ বন্ধ করা এবং মুসলিমদের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়াসহ মোট ১৫টি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল।

সে সময় ইরান, সুদান, সিরিয়া, লিবিয়া, সোমালিয়া, ইয়েমেন, ভেনেজুয়েলা, উত্তর কোরিয়া, নাইজেরিয়া এবং মিয়ানমারের ওপর ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বাইডেন। এছাড়া, যেসব কিশোর-তরুণ অবৈধভাবে তাদের স্বপ্ন পূরণের জন্য আমেরিকায় প্রবেশ করেছে তাদেরকে সে দেশে থাকার অনুমতি দেবেন বলেও জানান বাইডেন। এ সংক্রান্ত আইন পুনর্বহাল করতে চাচ্ছে তার প্রশাসন।