তুর্কি বিরোধী জোটে যোগ দিয়ে তুরস্ক থেকেই ড্রোন কিনতে চায় সৌদি

    সম্প্রতি তুরস্ক বিরোধী কথিত একটি জোটে যোগ দিয়েছে সৌদি আরব। এখানেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, তুরস্কের বিরুদ্ধে গ্রিসের সঙ্গে একটি সামরিক মহড়ায়ও যোগ দিয়েছিল তারা। তবে বিরোধী জোটে যোগ দিয়েও তুরষ্ক থেকেই ড্রোন কিনতে চাচ্ছে সৌদি আরব।

    বিষয়টি নিশ্চিত করে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বলেন, সৌদি আরব তুরস্ক থেকে সশস্ত্র ড্রোন কিনতে চায়। যখন তারা গ্রিসের সঙ্গে সামরিক মহড়া পরিচালনা করছে, তখন তাদের এ ধরনের প্রস্তাব বিভ্রান্তিকর।

    গত সোমবার (১৫ মার্চ) বিষয়টি নিশ্চিত করে এই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

    উল্লেখ্য, আরমেনিয়া আজারবাইজান যুদ্ধে তুর্কি ড্রোনের সফলতা সমগ্র বিশ্ব নিবিড়ভাবে প্রত্যক্ষ করেছে। এর ফলে বিশ্বব্যাপী তুর্কি ড্রোনের রপ্তানিও বেড়েছে। দেশটির ইতিহাসে প্রথমবারের মতো তাদের তৈরি উচ্চপ্রযুক্তির বিমান বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে।

    ২০২০ সালে তুরস্কের ড্রোন রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান বায়কার প্রায় ৩৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের ড্রোন বিদেশে রপ্তানি করেছে। ইউক্রেন, কাতার ও আজারবাইজান এ ড্রোন ব্যবহার করছে।

    আজারবাইজান এ ড্রোন ব্যবহার করে আর্মেনিয়ার সঙ্গে নাগোরনো-কারাবাখ সংঘাতে বিপুল সাফল্য লাভ করে। অন্যান্য দেশও এ ড্রোন কিনতে আলোচনা করছে।

    প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা তাদের গবেষণায় এটা নিশ্চিত করেছেন যে, আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনীর বহু আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, রাডার ব্যবস্থা, ট্যাংক, আর্মারেড সাঁজোয়াযান, ট্রাক, অস্ত্র, অবস্থান-অবকাঠামো ও সেনাবাহিনী বায়ারাাকটার টিবি-২ দ্বারা ধ্বংস হয়েছে।