এবার শিক্ষিকাকে হিজাব খুলতে বলায় প্রতিবাদ জানিয়ে পদত্যাগ

ভারতের কর্ণাটকে একটি কলেজে ইংরেজি বিভাগের একজন নারী শিক্ষককে কলেজে প্রবেশ সময় হিজাব খুলতে বলায় তিনি এর প্রতিবাদ জানিয়ে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন। আত্ম-সম্মানের জায়গা থেকে তিনি পদত্যাগ করেন বলে জানিয়েছেন। খবর এনডিটির।

পদত্যাগ করা ওই নারী শিক্ষকের নাম চাঁদিনী। তিনি তামাকুরুতে অবস্থিত জয়পুর কলেজে তিন বছর ধরে শিক্ষকতা করছেন। কিন্তু এই তিন বছরে কখনও তাকে হিজাব খুলতে বলা হয়নি। হিজাব খুলতে বলার ঘটনা এই প্রথম।

তিনি বলেন, জয়পুর কলেজে আমি তিন বছর ধরে কাজ করছি। এই তিন বছরে কোনো ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হয়নি। কিন্তু গতকাল কলেজে প্রিন্সিপাল আমাকে হিজাব পড়ে কলেজে ঢুকতে বাঁধা দেন। প্রিন্সিপাল বলেন, ধর্মীয় কোনো প্রতীক থাকতে পারবে না।

কিন্তু আমি তিন বছর ধরেই হিজাব পড়ে আসছি। এখন আমাকে হিজাব খুলতে বলায় আমার আত্মসম্মানে লেগেছে। এজন্যই আমি পদত্যাগ করেছি।

তবে হিজাব খুলতে বলার কথা অস্বীকার করছেন স্বয়ং কলেজের অধ্যক্ষ। কলেজের অধ্যক্ষ কেটি মঞ্জুনাথ বলেন, তিনি বা ম্যানেজমেন্টের কেউই তাকে হিজাব খুলতে বলেননি।

ভারতের কর্ণাটকে স্কুল-কলেজে হিজাব পড়া নিয়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এর ফলে এক সপ্তাহ পর্যন্ত প্রদেশটিতে স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। পরবর্তীতে স্কুল-কলেজ খুললে হিজাব পড়া ছাত্রীদের স্কুলে-কলেজ প্রবেশের আগে হিজাব খুলতে হচ্ছে।

এদিকে কর্ণাটকের হাই কোর্টও অস্থায়ীভাবে সব ধরনের ধর্মীয় পোশাক পড়তে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।