আমরাই সারা বিশ্বকে ঋণ দেব: অর্থমন্ত্রী

এবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘দেশের অর্থনীতির সব সূচক আশানুরূপ হয়েছে। বিদায়ি অর্থবছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৫০ বিলিয়ন ডলার হওয়ার আশা করেছিলাম, সেটা হয়নি।

তবে চলতি অর্থবছরে রিজার্ভ ৫০ বিলিয়ন ডলার হবে। অনেকে বলেন, ঋণ করে সংসার চালায় অর্থাৎ দেশ চালায়। ঋণ বেশি। এটা সঠিক নয়। দেশের জিডিপির তুলনায় বিদেশি ঋণ খুব কম।

মাত্র ৩৬-৩৭ শতাংশ। এত কম ঋণ কোনো দেশের নেই। সেদিন বেশি দূরে নয়, সারা বিশ্বকে আমরাই ঋণ দেব। ইতোমধ্যে রিজার্ভ থেকে ঋণ দেওয়া শুরু করেছি। মেগা প্রকল্পেও রিজার্ভ থেকে ঋণ পাচ্ছে।’

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক মানেজমেন্ট (বিআইবিএম) মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশ ব্যাংক পুরস্কার-২০২০’ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এদিন পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে অধ্যাপক ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, এতদিন যে উন্নয়নের সাফল্য পেয়েছি সেখানে সাধারণ মানুষের ভূমিকা ছিলো।

উন্নয়নের একটা বড় বৈশিষ্ট হলো এখানকার কৃষক, ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বড়শিল্প উদ্যোক্তারা যখন যে সুযোগ পেয়েছে তার পূর্ণব্যবহার করেছে। আর সরকার এক্ষেত্রে নীতি সহায়তা দিয়েছে। এটিই হলো বাংলাদেশের সাফল্যের মূলকথা।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন সাফল্য নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। তবে মনে রাখতে হবে উন্নয়নের কৌশল সব সময় সমান উপযোগী হতে হয়। সময়ে সময়ে পরিবর্তন, পরিবর্ধন প্রয়োজনে করতে হয়।

উচ্চ ফলনশস্যে প্রযুক্তির ব্যবহার, বিদেশে শ্রমবাজারের সুযোগ, তৈরি পোশাক রপ্তানি, ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের সুযোগ এসব ছিল এর মধ্যে।

এর সঙ্গে আরও একটি বিষয় হলো- বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে উন্নয়নের আকাঙ্ক্ষা আছে। এটা অন্য দেশের মানুষের মাঝে নেই। এই উন্নয়নের আকাঙ্ক্ষা একটা বড় শক্তি। এটা হয়তো মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাসংগ্রাম থেকে এসেছিল, এখনো আছে।

এ সময় ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, আমি এই পুরস্কার নিতে কিছুটা অস্বস্তি বোধ করছি, কারণ এই পুরস্কার প্রবর্তনের সঙ্গে আমি ও সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন যুক্ত ছিলাম।

তবে স্বস্তির বিষয় হলো স্বাধীনতার ৫০ বছরে এই পুরস্কার পাচ্ছি। আমি বাংলাদেশ ব্যাংকে দেড় দশক ছিলাম। যে কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার বাইরে বাংলাদেশ ব্যাংককে দ্বিতীয় কর্মস্থল বলে মনে করি।

তিনি আরও বলেন, আমরা উন্নয়নের নতুন পর্যায়ে পৌঁছেছি, বিশ্ব অর্থনীতিও বদলে যাচ্ছে। এই উন্নয়নে নানা চ্যালেঞ্জ আছে। প্রযুক্তিগত উন্নয়ন, মানসম্পন্ন শিক্ষা, উপযুক্ত শিক্ষার মাধ্যমে মানবসম্পদ তৈরি করা। যাতে ডেমোগ্রাফিক সুবিধা নিতে পারি।

প্রশাসনের দক্ষতা ও জবাবদিহিতা বাড়ানো। বিশ্ব আর্থিক অস্থিরতা সামাল দেওয়ার জন্য উন্নত মানের আর্থিক খাত গড়ে তোলা। এলডিসি থেকে উত্তরনের পর বিশ্ববাণিজ্যে সুবিধা নিতে ও টিকে থাকতে এই চ্যালেঞ্জগুলো আমাদের আছে।